সে বিবাহিত জেনেও তার ওপর প্রচন্ড দূর্বল হয়ে পড়ি, আমি তাকে প্রচন্ড ভালোবাসি

📮 মনচিঠি টেক্সট-২২ (প্রেরকের সম্মতিতে প্রকাশিত)

গত জুলাই মাসে আমার একটা ছেলের সাথে পরিচয় হয়, একটা ফুটবল গ্রুপের মাধ্যমে। আমরা দুজন সেম ক্লাবের সাপোর্টার। ফেসবুকে আলাপ হওয়ার পর জানতে পারি সে বিবাহিত। কিন্তু তার সাথে কথা বলতে বলতে আমি তার ওপর প্রচন্ড দূর্বল হয়ে পড়ি। আমি তাকে প্রচন্ড ভালোবাসি। সে আমাকে প্রচন্ড সাপোর্ট দেয় সবকিছুতে।

আমি জানি সে তার ওয়াইফকে প্রচন্ড ভালোবাসে। সে আমার সাথে ফ্রেন্ডের মতোই বিহেভ করে, কিন্তু আমি তাকে ভালোবেসে ফেলেছি। সে বাংলাদেশে থাকতো না। নেক্সট মান্থে সে দেশে আসবে। তারা দুজন আমার সাথে দেখাও করবে বলেছে। কিন্তু আমার এখন ভয় হয় আমি তাকে হারিয়ে ফেলবো কজ তার সাথে আমার আর যোগাযোগ হবে না যতদিন সে দেশে থাকবে। এইজন্য আমি প্রচন্ড ডিপ্রেসড। খুব কান্না পায় আমার। কিচ্ছু ভালো লাগে না।

এই পরিস্থিতিতে আমি কী করতে পারি? আমি সুস্থ স্বাভাবিক থাকতে চাই আবার তার সাথে যোগাযোগও রাখতে চাই ফিউচারে। এইটা কি পসিবল?

💌  মনচিঠি টেক্সট-২২ এর উত্তর

আপনি আপনার জীবনে ঘটে যাওয়া মুহূর্তগুলো সম্পর্কে সচেতন, সে জন্য আপনাকে সাধুবাদ জানাই।

আপনার চিঠি পড়ে যেটা বুঝতে পারলাম আপনি ফেসবুকের মাধ্যমে একজনের সাথে পরিচিত হয়েছেন এবং তাকে আপনি পছন্দ করেন, যেটা স্বাভাবিক। তার সাথে আপনি শুধু অনলাইনে আলাপ করেছেন। এর মানে আপনি তাকে সরাসরি জানেন না। তাই আপনি উনার উপর পুরোপুরি ভরসা করাটা কতটুকু যৌক্তিক হবে সেটা একটু ভেবে দেখবেন।

কারোর সাথে বেশ কিছু দিন কথা বললে তার প্রতি একটা ভালোলাগা কাজ করা স্বাভাবিক। যেটা আপনার ক্ষেত্রে হয়েছে। এটাকে লাভ না বলে ইনফেচুয়েশন বলা যেতে পারে।

আপনি বলছেন সে আপনাকে ফ্রেন্ড মনে করে এবং তার একটা পরিবার আছে। আপনি বাস্তবিকভাবে ব্যাপারটা একটু ভেবে দেখবেন।

ফ্রেন্ড হিসেবে সে আপনাকে অনেক সাপোর্ট দিচ্ছে, তাই তার প্রতি আপনার দূর্বলতা কাজ করাটা স্বাভাবিক।

আপনি বলছেন আপনি ভাড়া বাসায় থাকেন। একা থাকেন/ পরিবারের সাথে থাকেন/নাকি মেসে থাকেন? সেটা জানালে আপনার সাপোর্ট সিস্টেম সম্পর্কে জানতে পারতাম।

যেহেতু ফেসবুক ফ্রেন্ডের কাছ থেকে আপনি সাপোর্ট পাচ্ছেন, ধরে নিলাম আপনি সরাসরি তেমন কারোর সাথে আপনার বিশেষ মুহূর্তগুলো শেয়ার করেন না। (আমার ধারণা ভুল হলে ক্ষমা করবেন)

ফেসবুক বা ইন্টারনেট থেকে সাপোর্ট সিস্টেম না খুঁজে সরাসরি সাপোর্ট সিস্টেম তৈরি করা বেশি যৌক্তিক হবে কি না সেটা একবার ভেবে দেখুন।

জীবনটা আপনার, তাই আপনি যেভাবে জীবনকে সাজাবেন সেভাবেই হবে। কারোর প্রতি ডিপেন্ডেড না হয়ে নিজেই নিজের সাপোর্ট সিস্টেম হতে পারেন।

আপনি তার প্রতি ডিপেন্ডেড হওয়াতে তাকে হারিয়ে ফেলবেন ভেবে ভয় পাচ্ছেন। আপনি যাকে হারানোর ভয় পাচ্ছেন সে আদৌ আপনার ছিল কি না সেটা একবার ভেবে দেখুন।

আপনি কি তাকে আপনার মনের কথা গুলো বলেছিলেন? সে কী চাচ্ছে সেটা জেনে নিলে আপনার সিদ্ধান্ত নিতে সহজ হবে বলে মনে করি।

আপনি তাকে মিস করছেন ভেবে খারাপ লাগছে, যেটা স্বাভাবিক। আমরা আসলে কাউকে মিস করি না। তার সাথে কাটানো মুহূর্তগুলোকে আর উপভোগ করতে পারবো না ভেবে খারাপ লাগে। মিস করি ঐ মুহূর্তগুলোকে। সব কিছুই নিজের ইচ্ছের উপর নির্ভরশীল।

“আউট অব সাইট, আউট অব মাইন্ড” বলে একটা কথা আছে। তার সাথে যদি সম্পর্ক আগানোর কোন ইচ্ছে না থাকে তাহলে তার সাথে যোগাযোগ কমিয়ে ফেলা ভালো হবে বলে মনে করি।

(*** আমি সুস্থ স্বাভাবিক থাকতে চাই আবার তার সাথে যোগাযোগও রাখতে চাই ফিউচারে। এইটা কি পসিবল?? *** এই প্রশ্নের উত্তরে বলব, এইটা সম্পূর্ণ আপনার ইচ্ছার উপর নির্ভর করছে, আপনি তার সাথে কী ধরনের সম্পর্ক রাখতে চাচ্ছেন, সে সেটা চাচ্ছে কি না, আপনি যা চাচ্ছেন সে কি তা চাচ্ছে? আবার তার স্ত্রী এই পুরো ব্যাপারটা জানলে কিভাবে নিবে, এরকম আরও অনেক বিষয় থাকতে পারে।

সবগুলো দিক বিবেচনা করে আপনিই সিদ্ধান্ত নিন আপনি কী চাচ্ছেন। এই সকল বিষয়ে আপনি সরাসরি তার সাথে কথা বললে আপনার জটিলতা কেটে যাবে।)

আপনার চিঠি পড়ে বুঝতে পারলাম খেলাধুলার  প্রতি আপনি বেশ আগ্রহী। বর্তমান পরিস্থিতিতে আপনি যে কোন ধরনের অ্যাক্টিভিটি করতে পারেন। এতে আপনার দেহ ও মন দুইটাই ভালো থাকবে ।

এছাড়া সাময়িক সমাধান পেতে আপনি Breathing Exercise করতে পারেন।

প্রথমে লম্বা করে মুখ দিয়ে শ্বাস নিতে হবে, কিছুটা সময় তা ধরে রাখতে হবে (৪/৫ সেকেন্ড),
তারপর ধীরে ধীরে মুখ দিয়ে প্রশ্বাস ছাড়তে হবে।

এই ব্যায়াম আপনার বুক ধড়ফড় ও অস্বস্তি ভাব কমাতে সাহায্য করবে।

আপনি এর আগে কখনও এই রকম পরিস্থিতির সম্মুখীন হয়েছিলেন কি না সেটাও চিঠিতে উল্লেখ নেই। থাকলে চিঠির উত্তর দিতে সুবিধা হতো ।

আপনি সরাসরি একজন মনোবিজ্ঞানীর সাথে যোগাযোগ করতে পারেন, যিনি আপনার সমস্যা শুনে কিভাবে আপনার জীবনকে আরও সুন্দর করা যায় সে ব্যাপারে আপনাকে সাহায্য করবেন।

দেরীতে চিঠির উওর দেয়ার জন্য আন্তরিকভাবে দুঃখিত। আশা করি কিছুটা হলেও আপনার উপকারে আসবে।

DUOS এর মনচিঠির পাতায় সাহায্য চাইবার জন্য আপনাকে অনেক ধন্যবাদ। আমরা সবসময় আপনার পাশে আছি।

মোঃ মোজাম্মেল হক তায়েফ
২০-০২-৩১, পিয়ার কাউন্সেলর, মনচিঠি by DUOS  
mmh.decp8.du@gmail.com

💌 অনলাইন চিঠি ও উত্তরের (টেক্সট) মাধ্যমে মানসিক স্বাস্থ্য পরামর্শ পেতে এখানে ক্লিক করে ‘মনচিঠি’তে লিখতে হবে।

📞 ভয়েস কলে কাউন্সেলিং/মানসিক স্বাস্থ্য সহায়তা পেতে এখানে ক্লিক করে ফরমটি পূরণ করতে হবে।

☎️ হটলাইন নম্বরে ফোনকলের মাধ্যমে মানসিক স্বাস্থ্য পরামর্শ পাওয়ার নম্বরগুলো জানতে এই লিঙ্কে ক্লিক করতে হবে।

👩‍⚕️ এ ছাড়াও ইমেইল আইডি, ফেসবুক পেজ এবং সেলফোন নম্বরে যোগাযোগ করে মানসিক স্বাস্থ্য সহায়তা পাওয়া যাবেঃ

👍 ফেসবুক পেজ (ক্লিক করুন)
💬 ফেসবুক মেসেঞ্জার (ক্লিক করুন)
📞 সেলফোন নম্বর : 01841 21 52 71
📧 ইমেইল আইডি : monchithi.duos@gmail.com

🌐 বিস্তারিতঃ www.duos.org.bd/monchithi

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *